টাঙ্গাইল ১০:১৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ খবর :
কালিহাতীতে কোটা সংস্কারের দাবিতে কালিহাতী কলেজ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কালিহাতী শাজাহান সিরাজ কলেজের ৪৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন কালিহাতীতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ কালিহাতীতে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারের উপজেলা পরিষদ পরিদর্শন কালিহাতীতে বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে ব্যারিস্টার শুক্লা সিরাজ বাসাইলের কাশিলে বাথরুমের পাশে থেকে জীবিত নবজাতক উদ্ধার কালিহাতীর এলেঙ্গা রিসোর্ট থেকে অসামাজিক কার্যকলাপের অপরাধে আটক ১০ টাঙ্গাইলে গড়ে উঠেছে দেশের বৃহত্তম মাদকমুক্ত কেন্দ্রীয় সাধুসংঘ। টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে যায়যায়দিন পএিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত বাসাইল আরুহা গ্রামে পাকা রাস্তা না থাকায় দুর্ভোগ
ব্রেকিং নিউজ :
  • এটিভি বাংলা  অনলাইন নিউজ পোর্টালে সংবাদ প্রতিনিধি (সাংবাদিক) নিয়োগ দেশের বিভিন্ন  জেলা, থানা/উপজেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ‘এটিভি বাংলা  নিউজ পোর্টাল ’ পত্রিকায় সংবাদ প্রতিনিধি (সাংবাদিক) নিয়োগ দেয়া হবে। ‘এটিভি বাংলা [email protected]০১৭১৪৯১৮২৫৫

ধর্ষণের ভিডিও ছড়ানোর ভয় দেখিয়ে আবারও ধর্ষণ

মো: নাহিদ খান
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৩ আগস্ট ২০২২
  • / ৮২ বার পড়া হয়েছে

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে এক গৃহবধূকে (২৫) ধর্ষণ ও তার ভিডিও ধারণ করে জিম্মি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ আজ শনিবার দুপুরে সরিষাবাড়ী থানায় তিনজনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

মামলার প্রধান আসামি ধর্ষণের ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে আরও কয়েকবার ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

মামলার প্রধান আসামিসহ দুজনকে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

তাঁরা হলেন রাজন (২৫) ও তাঁর সহযোগী হালিম (৩২)।

 

আজ সকাল নয়টার দিকে উপজেলার দৌলতপুর গ্রাম থেকে তাঁদের আটক করে পুলিশ। পরে মামলা নথিভুক্ত করে তাঁদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তারাকান্দি পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুলতান মাহমুদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গ্রেপ্তার দুই আসামিকে দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হালিমের সহযোগিতায় রাজন জোরপূর্বক ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন এবং মুঠোফোনে তার ভিডিও ধারণ করেন।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী গৃহবধূর (২৫) স্বামীর বাড়ি উপজেলার সাতপোয়া ইউনিয়নের একটি গ্রামে। দেড় বছর আগে পাশের আওনা ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামে খালার বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হন ওই গৃহবধূ। এর আগে স্বজন হালিম তাঁর বন্ধু রাজনের সঙ্গে গৃহবধূর পরিচয় করিয়ে দেন। এর পর থেকে ওই গৃহবধূকে রাজন মুঠোফোনে প্রায়ই কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। হালিমের সহযোগিতায় রাজন জোরপূর্বক ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন এবং মুঠোফোনে তার ভিডিও ধারণ করেন।

এর পর থেকে রাজন ধর্ষণের ওই ভিডিও ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন সময় ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করে আসছিলেন। এমনকি গৃহবধূকে হুমকি-ধমকি ও ভয় দেখিয়ে দেড় বছরে রাজন গৃহবধূর কাছ থেকে ৪ লাখ টাকাও আদায় করেন।

সর্বশেষ গত মঙ্গলবার ওই গৃহবধূ দৌলতপুরে খালার বাড়ি থেকে ফেরার পথে সন্ধ্যায় রাজন তাঁকে অপর দুই আসামির সহযোগিতায় বাটিকামারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে নিয়ে মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এ সময় গৃহবধূর চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এলে রাজন দৌড়ে পালিয়ে যান।

সরিষাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মহব্বত কবির বলেন, ধর্ষণের আলামত পরীক্ষার জন্য গৃহবধূকে আজ দুপুরে জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

ধর্ষণের ভিডিও ছড়ানোর ভয় দেখিয়ে আবারও ধর্ষণ

প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৩ আগস্ট ২০২২

জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে এক গৃহবধূকে (২৫) ধর্ষণ ও তার ভিডিও ধারণ করে জিম্মি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূ আজ শনিবার দুপুরে সরিষাবাড়ী থানায় তিনজনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

মামলার প্রধান আসামি ধর্ষণের ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে আরও কয়েকবার ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগে বলা হয়েছে।

মামলার প্রধান আসামিসহ দুজনকে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

তাঁরা হলেন রাজন (২৫) ও তাঁর সহযোগী হালিম (৩২)।

 

আজ সকাল নয়টার দিকে উপজেলার দৌলতপুর গ্রাম থেকে তাঁদের আটক করে পুলিশ। পরে মামলা নথিভুক্ত করে তাঁদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তারাকান্দি পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুলতান মাহমুদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গ্রেপ্তার দুই আসামিকে দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হালিমের সহযোগিতায় রাজন জোরপূর্বক ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন এবং মুঠোফোনে তার ভিডিও ধারণ করেন।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী গৃহবধূর (২৫) স্বামীর বাড়ি উপজেলার সাতপোয়া ইউনিয়নের একটি গ্রামে। দেড় বছর আগে পাশের আওনা ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামে খালার বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হন ওই গৃহবধূ। এর আগে স্বজন হালিম তাঁর বন্ধু রাজনের সঙ্গে গৃহবধূর পরিচয় করিয়ে দেন। এর পর থেকে ওই গৃহবধূকে রাজন মুঠোফোনে প্রায়ই কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। হালিমের সহযোগিতায় রাজন জোরপূর্বক ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন এবং মুঠোফোনে তার ভিডিও ধারণ করেন।

এর পর থেকে রাজন ধর্ষণের ওই ভিডিও ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন সময় ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করে আসছিলেন। এমনকি গৃহবধূকে হুমকি-ধমকি ও ভয় দেখিয়ে দেড় বছরে রাজন গৃহবধূর কাছ থেকে ৪ লাখ টাকাও আদায় করেন।

সর্বশেষ গত মঙ্গলবার ওই গৃহবধূ দৌলতপুরে খালার বাড়ি থেকে ফেরার পথে সন্ধ্যায় রাজন তাঁকে অপর দুই আসামির সহযোগিতায় বাটিকামারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে নিয়ে মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এ সময় গৃহবধূর চিৎকারে লোকজন এগিয়ে এলে রাজন দৌড়ে পালিয়ে যান।

সরিষাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মহব্বত কবির বলেন, ধর্ষণের আলামত পরীক্ষার জন্য গৃহবধূকে আজ দুপুরে জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে।