টাঙ্গাইল ১০:০৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ খবর :
কালিহাতী প্রেসক্লাবের সভাপতি রঞ্জন কৃষ্ণ পন্ডিত সম্পাদক মিল্টন কালিহাতীতে দেড়শ’ বছরের ডুবের মেলা অনুষ্ঠিত কালিহাতী বীরবাসিন্দা ইউনিয়ন পরিষদের জায়গা বেদখল জমে উঠেছে কালিহাতী প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসমত আলী নেতার গণসংযোগ কালিহাতীতে নিখোঁজের পর বিল থেকে প্রবাস ফেরত যুবকের লাশ উদ্ধার করিমুন নেছা সিদ্দিকী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবীন বরন,পুরস্কার বিতরন,এস এস সি শিক্ষার্থীদের করিমুননেছা সিদ্দিকী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবীন বরণ, পুরষ্কার বিতরণ, এসএসসি পরীক্ষার্থী ২০২৪ জবরদস্তি ভিডিও মাধ্যমে অপপ্রচার করায় সাংবাদিক এনায়েত করিম এর প্রতিবাদ। সাপের কামড়ে ঘুমন্ত অবস্থায় ১১ মাসের শিশুর মৃত্যু
ব্রেকিং নিউজ :

লকডাউন আর না দেওয়ার আহ্বান

মো: নাহিদ খান
  • প্রকাশিত : বুধবার, ১২ জানুয়ারি ২০২২
  • / ৯ বার পড়া হয়েছে

এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন লকডাউনের মতো কঠোর বিধিনিষেধ না দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির মধ্যে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠনের সভাপতি এ আহ্বান জানালেন।

বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে জসিম উদ্দিন বলেন, লকডাউনের কারণে ব্যবসার ক্ষতি হচ্ছে। এ কারণে বিশ্বের কোনো দেশ এখন লকডাউন দিচ্ছে না।

তিনি বলেন, গত বছর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখার কারণে আমাদের রপ্তানি বাড়ছে। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও আমরা জিডিপির ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি। অথচ আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতসহ পৃথিবীর অনেক দেশে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

নতুনভাবে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় লকডাউন নিয়ে ব্যবসায়ী সমাজ শঙ্কিত হয়ে পড়েছে উল্লেখ করে এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, গত বছর ১৩-১৪ দিন পোশাক কারখানা বন্ধ থাকায় শ্রমিকরা চাকরি ছেড়ে বাড়ি গিয়ে আর ফিরে আসেননি। সুতরাং লকডাউনেই সমাধান নয়, এর কারণে ক্ষতি হচ্ছে।

লকডাউনের পরিবর্তে স্বাস্থ্য সচেতনতার ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, সরকার যে টিকা ছাড়া হোটেল-রেস্টুরেন্টে যাওয়া কিংবা সমাবেশ বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছে, এটিকে আমি সমর্থন করি। আমাদের জোর দিতে হবে টিকা এবং স্বাস্থ্য সচেতনতায়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ডিআরইউর সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিব। ডিআরইউর সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠুও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের শনাক্ত বৃদ্ধির মধ্যে বেশ কিছু বিধিনিষেধ ফিরিয়ে এনেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার থেকে উন্মুক্ত স্থানে সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান কিংবা সভা-সমাবেশ বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। ট্রেন, বাস এবং লঞ্চে সক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নেওয়া যাবে। রেস্তোরাঁয় বসে খেতে, আবাসিক হোটেল থাকতে দেখাতে হবে টিকা সনদ। ১২ বছরের বেশি বয়সের শিক্ষার্থীদের টিকা সনদ ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

লকডাউন আর না দেওয়ার আহ্বান

প্রকাশিত : বুধবার, ১২ জানুয়ারি ২০২২

এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন লকডাউনের মতো কঠোর বিধিনিষেধ না দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির মধ্যে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠনের সভাপতি এ আহ্বান জানালেন।

বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে মিট দ্য রিপোর্টার্স অনুষ্ঠানে জসিম উদ্দিন বলেন, লকডাউনের কারণে ব্যবসার ক্ষতি হচ্ছে। এ কারণে বিশ্বের কোনো দেশ এখন লকডাউন দিচ্ছে না।

তিনি বলেন, গত বছর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খোলা রাখার কারণে আমাদের রপ্তানি বাড়ছে। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও আমরা জিডিপির ৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি। অথচ আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারতসহ পৃথিবীর অনেক দেশে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

নতুনভাবে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় লকডাউন নিয়ে ব্যবসায়ী সমাজ শঙ্কিত হয়ে পড়েছে উল্লেখ করে এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, গত বছর ১৩-১৪ দিন পোশাক কারখানা বন্ধ থাকায় শ্রমিকরা চাকরি ছেড়ে বাড়ি গিয়ে আর ফিরে আসেননি। সুতরাং লকডাউনেই সমাধান নয়, এর কারণে ক্ষতি হচ্ছে।

লকডাউনের পরিবর্তে স্বাস্থ্য সচেতনতার ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, সরকার যে টিকা ছাড়া হোটেল-রেস্টুরেন্টে যাওয়া কিংবা সমাবেশ বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছে, এটিকে আমি সমর্থন করি। আমাদের জোর দিতে হবে টিকা এবং স্বাস্থ্য সচেতনতায়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ডিআরইউর সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম হাসিব। ডিআরইউর সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠুও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের শনাক্ত বৃদ্ধির মধ্যে বেশ কিছু বিধিনিষেধ ফিরিয়ে এনেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার থেকে উন্মুক্ত স্থানে সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠান কিংবা সভা-সমাবেশ বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। ট্রেন, বাস এবং লঞ্চে সক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী নেওয়া যাবে। রেস্তোরাঁয় বসে খেতে, আবাসিক হোটেল থাকতে দেখাতে হবে টিকা সনদ। ১২ বছরের বেশি বয়সের শিক্ষার্থীদের টিকা সনদ ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।