টাঙ্গাইল ১০:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ খবর :
কালিহাতী প্রেসক্লাবের সভাপতি রঞ্জন কৃষ্ণ পন্ডিত সম্পাদক মিল্টন কালিহাতীতে দেড়শ’ বছরের ডুবের মেলা অনুষ্ঠিত কালিহাতী বীরবাসিন্দা ইউনিয়ন পরিষদের জায়গা বেদখল জমে উঠেছে কালিহাতী প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসমত আলী নেতার গণসংযোগ কালিহাতীতে নিখোঁজের পর বিল থেকে প্রবাস ফেরত যুবকের লাশ উদ্ধার করিমুন নেছা সিদ্দিকী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবীন বরন,পুরস্কার বিতরন,এস এস সি শিক্ষার্থীদের করিমুননেছা সিদ্দিকী উচ্চ বিদ্যালয়ের নবীন বরণ, পুরষ্কার বিতরণ, এসএসসি পরীক্ষার্থী ২০২৪ জবরদস্তি ভিডিও মাধ্যমে অপপ্রচার করায় সাংবাদিক এনায়েত করিম এর প্রতিবাদ। সাপের কামড়ে ঘুমন্ত অবস্থায় ১১ মাসের শিশুর মৃত্যু
ব্রেকিং নিউজ :

দ্বায়িত্ব শেষে নতুন চমক দেখিয়ে দিলো নান্নু

মো: নাহিদ খান
  • প্রকাশিত : বুধবার, ১২ জানুয়ারি ২০২২
  • / ১১ বার পড়া হয়েছে

যুব দলের সাবেক কোচ নান্নুর অধীনে অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেছেন বর্তমান জাতীয় দলের এক ঝাঁক খেলোয়াড়।

তাদের মধ্যে আছেন টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, আবু হাসান রাজুর মত প্রতিভাবানরা। এই খেলোয়াড়রা তার হাতেই গড়া, মনে করেন নান্নু।

বিডিক্রিকটাইমকে তিনি বলেন, ‘খেলোয়াড়ি জীবন শেষ করে কোচিংয়ে ছিলাম। তখন খেলোয়াড় তৈরি করেছি। দেখুন, ২০০৯-১০ সালে আমি অনূর্ধ্ব-১৯ দলের প্রধান কোচ ছিলাম।

সেই ব্যাচের ১৬ জন জাতীয় দলকে প্রতিনিধিত্ব করেছে। মুমিনুল আমার ব্যাচের খেলোয়াড়। সৌম্য, সাব্বির, বিজয়, রাজু- সবাই আমার হাতে গড়া। কোচ হিসেবে খেলোয়াড় তৈরির ক্ষেত্রে নিজেকে সফল বলেই মনে করেন সাবেক এই অধিনায়ক। তার ভাষায়, ‘কোচিংয়ের সাথে দীর্ঘ সময় আমি কাটিয়েছি।

কোচ হিসেবে আমি যখন কাজ করেছি তখনকার পাইপলাইনের সব খেলোয়াড়ই কিন্তু এখন জাতীয় দলে। এখানে একটা তৃপ্তি অবশ্যই আছে।’তবে কোচিংয়ের পর নির্বাচক হিসেবে কাজ করতে গিয়ে নানা সময়ে নানা বিতর্কের মুখোমুখি হয়েছেন নান্নু।

টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে কাজ করতে হয়, কোচ-অধিনায়কের পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোতে হয়। আমি মনে করি বাংলাদেশের ক্রিকেটের

উন্নতির জন্য যতটুকু কাজ করা দরকার তা আমরা ভালোই করেছি।’ গত ডিসেম্বরে শেষ হয়েছে নান্নুর নেতৃত্বাধীন নির্বাচক প্যানেলের দায়িত্ব,

যে প্যানেল নতুন করে অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব পেয়েছে এক মাসের জন্য। নতুন প্যানেলে দায়িত্ব পেলে আবারও নির্বাচকের ভুমিকায় থাকতে চান, জানান নান্নু। তিনি বলেন, ‘এখন তো চুক্তি শেষ হয়ে গেছে। বোর্ড যদি চায় অবশ্যই আবার দায়িত্ব নিব।

 

ট্যাগস :

নিউজটি শেয়ার করুন

দ্বায়িত্ব শেষে নতুন চমক দেখিয়ে দিলো নান্নু

প্রকাশিত : বুধবার, ১২ জানুয়ারি ২০২২

যুব দলের সাবেক কোচ নান্নুর অধীনে অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলেছেন বর্তমান জাতীয় দলের এক ঝাঁক খেলোয়াড়।

তাদের মধ্যে আছেন টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, আবু হাসান রাজুর মত প্রতিভাবানরা। এই খেলোয়াড়রা তার হাতেই গড়া, মনে করেন নান্নু।

বিডিক্রিকটাইমকে তিনি বলেন, ‘খেলোয়াড়ি জীবন শেষ করে কোচিংয়ে ছিলাম। তখন খেলোয়াড় তৈরি করেছি। দেখুন, ২০০৯-১০ সালে আমি অনূর্ধ্ব-১৯ দলের প্রধান কোচ ছিলাম।

সেই ব্যাচের ১৬ জন জাতীয় দলকে প্রতিনিধিত্ব করেছে। মুমিনুল আমার ব্যাচের খেলোয়াড়। সৌম্য, সাব্বির, বিজয়, রাজু- সবাই আমার হাতে গড়া। কোচ হিসেবে খেলোয়াড় তৈরির ক্ষেত্রে নিজেকে সফল বলেই মনে করেন সাবেক এই অধিনায়ক। তার ভাষায়, ‘কোচিংয়ের সাথে দীর্ঘ সময় আমি কাটিয়েছি।

কোচ হিসেবে আমি যখন কাজ করেছি তখনকার পাইপলাইনের সব খেলোয়াড়ই কিন্তু এখন জাতীয় দলে। এখানে একটা তৃপ্তি অবশ্যই আছে।’তবে কোচিংয়ের পর নির্বাচক হিসেবে কাজ করতে গিয়ে নানা সময়ে নানা বিতর্কের মুখোমুখি হয়েছেন নান্নু।

টিম ম্যানেজমেন্টের সাথে কাজ করতে হয়, কোচ-অধিনায়কের পরিকল্পনা অনুযায়ী এগোতে হয়। আমি মনে করি বাংলাদেশের ক্রিকেটের

উন্নতির জন্য যতটুকু কাজ করা দরকার তা আমরা ভালোই করেছি।’ গত ডিসেম্বরে শেষ হয়েছে নান্নুর নেতৃত্বাধীন নির্বাচক প্যানেলের দায়িত্ব,

যে প্যানেল নতুন করে অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব পেয়েছে এক মাসের জন্য। নতুন প্যানেলে দায়িত্ব পেলে আবারও নির্বাচকের ভুমিকায় থাকতে চান, জানান নান্নু। তিনি বলেন, ‘এখন তো চুক্তি শেষ হয়ে গেছে। বোর্ড যদি চায় অবশ্যই আবার দায়িত্ব নিব।